হিরা চাই না, মানিক চাই - সুজাতা দেববর্মা



মাননীয় প্রধানমন্ত্রীজি, আমি আপনার উদ্দেশ্যে বলছি, আমাদের ছোট সাজানো গোছানো রাজ‍্য ত্রিপুরা।এখানে আমরা গত পঁচিশ বছর ধরে বেশ সুখে- শান্তিতে দিন যাপন করছি। আমরা সব পেয়ে গেছি ভুল হবে। যা পাইনি তা কেন্দ্রীয় সরকারের বঞ্চনার কারণে পাইনি। রাজ‍্য সরকারের সদিচ্ছার ঘাটতি ছিল না। শান্তির রাজ‍্য ত্রিপুরা এ নেই কোন সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা, হানাহানি, রাহাজানি। আমরা নারীরা ও রাজধানী দিল্লি অথবা আপনার দলের পরিচালিত রাজ‍্যগুলো থেকে অনেক বেশি সুরক্ষিত।  আপনার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রিপোর্টের ছত্রে ছত্রে তার উল্লেখ আছে। 
আপনাকে আমার প্রশ্ন বিগত লোকসভা নির্বাচনের সময়ে বছরে দুই কোটি বেকারের চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কতজন বেকারকে চাকুরী দিয়েছেন? 
জবাব চাই প্রধানমন্ত্রী জি। আপনার প্রতিশ্রুতির মূল্য রাজ‍্যবাসি ভালো করে জানেন। গল্পের গরু গাছে চড়ার সমান আপকা কালাধন বাপাস লানা? নোটবন্দির পর কত কৃষক ভাই আত্মহত্যা করেছেন? অতীতের ইতিহাসে এমন দৃষ্টান্ত দেখাতে পারবেন?  আপনি ক্ষমতায় আসার পর প্রতিদিন পেট্রোল, ডিজেল, রান্নার গ‍্যাসের দাম বাড়ছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের মূল্যবৃদ্ধি ঘটছে।  আপনি এগুলো নিয়ন্ত্রণে রাখতে কি ভূমিকা নিয়েছেন? 
আপনি তো কর্পোরেটদের সুবিধা করে দিতে মরিয়া । ফলশ্বরুপ দেশের সাধারণ মানুষের জীবন-জীবিকা দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। কেন? এর জন্য দায়ী আপনারা।
আপনাদের গরিব মানুষের বিরুদ্ধে গিয়ে কর্পোরেটদের সুবিধা করে দিতে কে দায়িত্ব দিয়েছে?  আপনারা দেশের জনগণের সঙ্গে একের পর এক প্রতারনা করে চলেছেন। ত্রিপুরা এ নির্বাচনি প্রচারে এসে আপনি প্রমান দিয়ে গেলেন আপনি কতটা মিথ্যাবাদী।  আপনারা বলছেন মনিপুরে সপ্তম বেতন কমিশন দেওয়া হয়ে গেছে। আসলে সেখানকার আপনাদের দলের সরকার আর্থিক সংকটের কারন দেখিয়ে রাজ‍্য কর্মচারীদের সপ্তম বেতন কমিশন দেওয়া সম্ভব নয় বলে জানিয়ে দিয়েছে। 
আপনার পদের গরিমার সঙ্গে এতটা মিথ্যাচার সঙ্গতিপূর্ন নয়।  আপনাদের শ্লোগান 'চলো পাল্টাই ' এতটা সহজ নয়। আগে নিজের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করুন। তারপর ত্রিপুরার বামফ্রন্ট সরকারের খুঁত ধরতে আসবেন। 
আমরা মানিক'কেই চাই, নকল হিরায় আমাদের কোন আসক্তি নেই। ভালো থাকবেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ