শিক্ষক দিবসের মঞ্চকে কুৎসিত করলেন কৃতি সুন্দর



আগরতলা: ভারতের শিক্ষক দিবস'র পূন্য দিনে শিক্ষক কোলকেই চরম অসম্মান করলেন কৃতি সুন্দর দে নামে বিদ্যালয় পরিদর্শক (আই এস)। 



বুধবার (৫ সেপ্টেম্বর) সারা ভারতের সঙ্গে ত্রিপুরা রাজ্যের উত্তর জেলার কাঞ্চনপুর মহকুমাতেও শিক্ষক দিবসের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠান সুন্দর ভাবে পরিচালনা করার জন্য একটি কমিটি গঠিত হয়। কমিটির সিদ্ধান্ত অনুসারে অনুষ্ঠানের সভাপতি হিসেবে মনোনিত করা হয় মহকুমার ইনিস্পেক্টর লেভেল এডুকেশন কমিটির বর্তমান চেয়ারম্যান তথা অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক শিশির কুমার নাথকে। অনুষ্ঠানের আহ্বায়ক হিসেবে আই এস কৃতি সুন্দর দে চিঠি ছাপিয়ে তা সভাপতি শিশির কুমার নাথসহ অন্যান্য অতিথিদের মধ্যে বিতরণ করেন। 

চিঠি পেয়ে শিশির কুমার নাথ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে টাউন হলে আসেন। কিন্তু মঞ্চ'র সামনে আসতেই কৃতি সুন্দর দে শিশির কুমার নাথ'কে বলেন যে তাকে সভাপতি করা যাবে না, কারণ তিনি বামপন্থি মতাদর্শে বিশ্বাসী বলে অভিযোগ। এই কথা শুনে প্রবীন এই শিক্ষক অপমানিত হয়ে নিরবে হল ছেড়ে চলে যান। পরবর্তী সময় তাকে অনুষ্ঠান মঞ্চে না দেখে অনেকে খোঁজাখোজি করেন কিন্তু না পেয়ে পরবর্তী সময় যখন তার সঙ্গে অনুষ্ঠানে উপস্থিত অনেকেই যোগাযোগ করার চেষ্টা করেন তখন তিনি কিছু বলেন নি। শেষে এই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা যখন এই ঘটনার কথা প্রকাশ পেথেই রাজ্য জুড়ে ছি ছি রব উঠে। শুভবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষ এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছেন।



এই বিষয়ে বৃহস্পতিবার (৬ সেপ্টেম্বর) এই কলঙ্কিত ঘটনার মূল কান্ডারী আই এস কৃতি সুন্দর দে'কে এই বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি প্রশ্ন শুনে সাংবাদিকদের সঙ্গে নূন্যতম সৌজন্য বোধ না দেখিয়ে ফোন কেটেদেন। পরবর্তী সময় তাকে ফোন করলে তিনি ফোন রিসিভ করেন নি। 

এই বিষয়ে জানতে পরবর্তী সময় সাংবাদিকরা রাজ্যে শিক্ষামন্ত্রী রতন লাল নাথ'র সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি জানান বিষয় সম্পর্কে তাকে কেউ কিছু জানায় নি। তবে তিনি বিষয়টি যেহেতু শুনেছেন নিশ্চয় খোঁজ নেবেন। 

এই বিষয়ে অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক শিশির কুমার নাথ'র সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান ছাত্রছাত্রীদের কল্যানে তিনি সারাটা শিক্ষক জীবন কাটিয়েছেন। অবসরে আসার পর কেন তার সঙ্গে এমন আচরণ করা হলো তা তিনি এখনো বুঝতে পারেননি। 


রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী শিক্ষা ব্যবস্থার হাল ফেরাতে প্রায় প্রতিদিন রাজ্যের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ছুটে শিক্ষকদের মনোবল চাঙ্গা করছেন। সেখানে শিক্ষা দফতর'র একাংশ কর্মী শিক্ষামন্ত্রী এই চেষ্টায় জল ঢালার কাজে ব্যাস্ত বলে অভিযোগ অভিজ্ঞ মহলের একাংশের।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ