April 17, 2021

News World Bangla

Everyday news in bangla

করোনা-কাঁটা পেরিয়ে ‘মা আসবেই’, কোমর বেঁধেছেন সন্তানেরা|

1 min read

করোনা-কাঁটা পেরিয়ে ‘মা আসবেই’, কোমর বেঁধেছেন সন্তানেরা|পুজোর আর একমাসও বাকি নেই। মহালয়া পেরিয়ে গিয়েছে। এবার অবশ্য মল মাস থাকায় মহালয়ার সাতদিন পরে নয় বরং কার্যত একমাস পর উমার বোধনের তিথি পড়েছে। তবে সময়ের নিয়ম মেনে মাঠে কাশফুলের দেখা মিলেছে। বৃষ্টি-নিম্নচাপ-গুমোট গরমের মধ্যে মাঝে মধ্যে শরতের আকাশও উঁকি দিয়েছে। নেই খালি দুর্গাপুজোর আমেজ, এ শহরের আড়ম্বর। অন্যান্য বারের মতো সাজো সাজো রবটাই নেই কলকাতার কোথাও। হোর্ডিং-ব্যানার-ক্লাবের প্রচার-পুজোর শপিং, প্ল্যানিং সবেতেই যেন কার নজর লেগে গিয়েছে।

আর এইসবের মূলের রয়েছে অতিমারী করোনা। পুজোর সঙ্গে জড়িত সব মানুষগুলোর জীবনে আচমকাই নেমেছে অন্ধকার। এই যেমন প্রতি বছর পুজোয় পাড়ার মঞ্চ বাঁধার ডাক পড়ত বাচ্চুদার। প্রতি সন্ধের মাইকের দায়িত্বে থাকত বাপি। এবার এদের কোনও বায়না হয়নি। কারণ সমস্ত পুজোর অনুষ্ঠান বন্ধ। যে সব শিল্পীদের কাছে পুজো বলতেই এ-পাড়া, ও-পাড়া কিংবা দেশ-বিদেশের অনুষ্ঠান, গালে হাত তাঁদেরও। কারণ একটাও বুকিং আসেনি। পুজোর মরশুমে মাথায় হাত পড়েছে অনেকেরই। অনেক পাড়ায় তো ক্লাবের তরফে জানিয়েও দেওয়া হয়েছে কেবল নিয়ম রক্ষার্থে পুজো হবে।

করোনা-কাঁটা পেরিয়ে ‘মা আসবেই’, কোমর বেঁধেছেন সন্তানেরা|কিন্তু পুজো নিয়মের হোক বা আড়ম্বরের মা যখন মর্ত্যে আসছেন তখন তাঁর আগমনে উৎসব তো হবেই। তাই স্যানিটাইজার-মাস্ক আর সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিংয়ের ঘেরাটোপেই এক অনন্য আয়োজন করেছে ‘ক্যালকাটা ব্রডওয়ে’। কলকাতার শিল্পী জগতের তরুণ-তুর্কিদের সঙ্গে এই অনুষ্ঠানে ভাগ নেবেন প্রবাদপ্রতিম শিল্পীরাও। ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে আসতে চলেছে এক নতুন গল্প ‘মা আসবেই’। টিকিট কেটে বাড়ি বসেই দেখা যাবে সব শিল্পীদের দুরন্ত পারফরম্যান্স। আর টিকিট বিক্রির সমস্ত টাকটাই তুলে দেওয়া হবে সেইসব মানুষের হাতে যাঁরা সারা বছর যুক্ত থাকেন এই শিল্পীদের সঙ্গেই। যেমন যিনি মঞ্চসজ্জায় থাকেন, বা লাইটম্যান কিংবা ব্যাকস্টেজে কাজ করেন যে কর্মী বা শিল্পীদের সহযোগী এবং নতুন বা ইয়ং জেনারেশনের যেসব আর্টিস্ট এই করোনা কালে সমস্যায় জর্জরিত তাঁদের সকলের মুখেই হাসি ফোটানোর প্রয়াস ‘মা আসবেই’।

আগামী ১৭ অক্টোবর থেকে ওয়েব প্ল্যাটফর্মে দেখা যাবে এই অনুষ্ঠান। মিউজিয়ানা মাইলসের ওয়েবসাইটে টিকিট কাটা যাবে। সেখানেই দেখা যাবে অনুষ্ঠান। কৌশিকী চক্রবর্তী, তন্ময় বসু, ইমন চক্রবর্তী, শর্মিলা বিশ্বাস, সাগ্নিক সেন, নীলয় সেনগুপ্ত, গোকুল চন্দ্র দাস, নান্দীকারের এক দল তরুণ তুর্কি এবং শৌনক চট্টোপাধ্যায়, সাম্য কার্ফা ও আরও অনেকেই রয়েছেন এই অনুষ্ঠানে। মূল গল্পটির ভাবনা শৌনক ও সাম্যর এবং অনুষ্ঠান পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন শৌর্য দেব। সঙ্গীত পরিচালনায় রয়েছেন প্রত্যূষ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং প্রদ্যোত চট্টোপাধ্যায়।

দীর্ঘদিন পর এমন অনুষ্ঠান নিয়ে উৎসাহী সকলেই। যেমন বাচিক শিল্পী সাম্য বলছেন, “বহু দিন পর ঘর থেকে বেরিয়ে আবার স্টুডিওয় দাঁড়িয়ে কাজ করছি। আবার সকলে মিলে তৈরি করছি এক একটা গান। একটা কবিতা। প্রায় ৬ মাস পর, ভাবা যায়! আর এই সবকিছুর জন্য ক্যালকাটা ব্রডওয়েকে বিশেষ ধন্যবাদ”। উত্তেজনার একই সুর ধরা পড়েছে ইমনের গলাতেও। তিনি বলছেন, “আমি একটি পুরাতনী গান গাইছি। সাধারণত যে ভাবে আলাদা করে ট্র্যাক তৈরি করে তারপর রেকর্ড করা হয় এ ক্ষেত্রে সে ভাবে এই গানটি তৈরি করা হয়নি। আমরা লাইভ রেকর্ড করেছি। ”

তবে স্টুডিওর ফ্লোরেও সংক্রমণ ছড়ানোর একটা চাপা দুশ্চিন্তা তো রয়েছেই সকলের মধ্যেই। তবে সেই ভয়কে জয় করেই এগিয়ে এসেছেন শিল্পীরা। গান-নাটক-নাচ-কবিতা অর্থাৎ বিভিন্ন আর্ট ফর্মে নিপুণ ভাবে বোনা হয়েছে একটা সুন্দর গল্প। যেটা দর্শকদের সঙ্গে সঙ্গে অবশ্যই হাসি ফোটাবে শিল্পীদের সহযোগীদের মুখেও। কারণ পুজোর কটাদিন ওঁদের অক্লান্ত পরিশ্রমেই হাসি ফোটে বাকিদের মুখে। ওঁদের কেউ মঞ্চ সাজান, কেউবা থাকেন আলোর দায়িত্ব, কারও দায়িত্ব শিল্পীর সঙ্গে যোগ্য সঙ্গত করা। নিত্যদিনে অনুষ্ঠানই ছিল এই মানুষগুলোর প্রধান সম্বল। করোনা তাঁদের রুজিরুটির অনেকটাই কেড়ে নিয়েছে। আর তাই সবটুকু না হলেও তাঁদের কিছুটা আনন্দ ফিরিয়ে দিতে আগমনীতে এবার উদ্যোগী ক্যালকাটা ব্রডওয়ে।

আরো দেখুন:- কলেজ হোস্টেলে তরুণীকে ধর্ষণ করল শাসক দলের নেতারা|

কারণ শত বাধা, শত অন্ধকার থাকলেও মা-কে তো তাঁর সন্তানদের কাছে আসতেই হবে। তাদের রক্ষা করতেও হবে। তবে এমন সংকটের দিনে দেবী দুর্গা দশভুজা রূপে কীভাবে মর্ত্যবাসীকে আগলে রাখবেন, কীভাবেই বা হবে উমার বোধন এই সবকিছু নিয়েই একটা নতুন গল্প শুনতে পাবেন, দেখতে পাবেন দর্শকরা। সাক্ষী হবেন এক অনন্য মুহূর্তের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Copyright newsworldbangla.com © All rights reserved. | Newsphere by AF themes.
//couptoug.net/4/3616981